খুলনায় সন্ত্রাসীদের গুলিতে মুক্তিযোদ্ধা শাহাদাত নিহত, আহত চার

জুন ১৫, ২০১৭

আপনি দেখছেন: দেশের খবর >> খুলনা, প্রধান খবর, স্থানীয় >> খুলনায় সন্ত্রাসীদের গুলিতে মুক্তিযোদ্ধা শাহাদাত নিহত, আহত চার

প্রতিনিধি, খুলনা: নগরীর হরিণটানা থানার রায়েরমহল মোস্ত মোড় এলাকায় বুধবার রাত আনুমানিক ৮টায় সন্ত্রাসীরা গুলি করে মুক্তিযোদ্ধা শাহাদাত হোসেন মোল্লাকে (৫৯) হত্যা করেছে। এ সময় আরো চারজন আহত হয়। তাদেরকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আহতরা হলেন- মোস্তফা, লিয়াকত আলী খান, রুবেল ও বুলবুল। এদের মধ্যে রুবেল ও বুলবুলের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে হাসপাতালের জরুরি বিভাগে কর্তব্যরত চিকিৎসক জানিয়েছেন।

এলাকাবাসী জানায়, রাত ৮টায় নিহত মুক্তিযোদ্ধা শাহাদাত মোল্লা তার নিজস্ব রড সিমেন্ট দোকানের সামনে বসে ছিলেন। এ সময় ৫/৬ জনের একদল সন্ত্রাসী পেছন থেকে অতর্কিতভাবে গুলিবর্ষণ করে। সন্ত্রাসীদের হামলায় মুক্তিযোদ্ধা শাহদাত মোল্লাসহ পাঁচ জন গুলিবিদ্ধ হন। তাদেরকে দ্রুত খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক শাহাদাত মোল্লাকে মৃত ঘোষণা করেন। আহতরা সবাই নিহত মুক্তিযোদ্ধা শাহাদাত হোসেন মোল্লার আপনজন। এর মধ্যে রুবেল তার ভাগ্নে বলে জানা গেছে। নিহত শহাদাত হোসেন মোল্লার তিন ছেলে রয়েছে বলে জানা গেছে।

হরিণটানা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোশররফ হোসেন ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, কিলিং মিশনের সদস্যরা পায়ে হেঁটে এসে গুলি করে পালিয়ে যায়। ঘটনার সময় নিহত মুক্তিযোদ্ধা শাহাদাত হোসেন মোল্লা মোস্ত’র মোড়ে বাইপাস সড়কে নিজ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের সামনে চাতালে বসে সঙ্গীদের নিয়ে কথাবার্তা বলছিলেন।

খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশের সিটিএসবি’র এডিসি মনিরা জানান, সন্ত্রাসীরা মুক্তিযোদ্ধা শাহাদাত মোল্লার পেছন থেকে গুলি করে এবং গুলি তার ঘাড়ে লাগে। তিনি বলেন, নিহত শাহাদাত হোসেন মোল্লা নগরীর রায়েরমহল হামিদনগর এলাকার বাসিন্দা। সন্ত্রাসীরা গুলি করে ঘটনাস্থল ত্যাগ করে। তবে কি কারণে এই হত্যাকাণ্ড তা পুলিশ বা এলাকাবাসী জানাতে পারে নি।

হাসপাতালের জরুরি বিভাগ সূত্রে জানা যায়, আহতদের জরুরি অপরেশন প্রয়োজন। আহত রুবেল ও বুলবুলের অবস্থা আশঙ্কাজনক। এ লেখা পর্যন্ত আহতদের চিকিৎসা চলছিল।

হাসপাতালে নিহত আহতদের স্বজনদের আহাজারিতে বাতাস ভারি হয়ে ওঠে। তবে কি কারণে এই হত্যাকাণ্ড  তা জানা যায় নি।

হত্যাকাণ্ড মিশনে সন্ত্রাসীরা কোনো বাহনে এসেছিল কিনা তা আহতরা কিছুই বলতে পারেনি। তাদের বক্তব্য অতির্কিতগুলি বর্ষণের ঘটনায় তারা দিকবিদিক হয়ে যান।

ঘটনার পরে হরিণটানা থানা পুলিশ ও কেএমপি’র পদস্থ কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। পুলিশ হত্যাকারীদের গ্রেফতারের চেষ্টা চালাচ্ছে বলে জানা গেছে।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *