লিচুর রাজধানীতে বড় দরপতন, লোকসানের মুখে চাষিরা

জুন ৩, ২০১৭

আপনি দেখছেন: দেশের খবর >> পাবনা, প্রধান খবর, ব্যবসা-বাণিজ্য, স্থানীয় >> লিচুর রাজধানীতে বড় দরপতন, লোকসানের মুখে চাষিরা

স্বপন কুমার কুন্ডু, ঈশ্বরদী (পাবনা): রোজার শুরুতেই লিচুর রাজধানী হিসেবে খ্যাত ঈশ্বরদীর লিচুর দর পড়ে গেছে। এতে লিচু চাষিদের মধ্যে হতাশা নেমে এসেছে।

রোজার আগে এক হাজার বোম্বাই লিচু বিক্রি হয়েছে ২ হাজার ৫০০ টাকা। এখন দাম কমে হয়েছে ১ হাজার ২০০ থেকে ১ হাজার ৫০০ টাকা।

আবার একটু ছোট বা ভালো রং  হয়নি এমন লিচু ৮০০ থেকে ১ হাজার টাকা দরেও বিক্রি হচ্ছে।

লিচুর দাম হঠাৎ কমে যাওয়ায় লিচু চাষি ও ব্যাপারিরা দিশেহারা হয়ে পড়েছেন।

সরজমিনে মানিকনগর, জয়নগর, মিরকামারী, আওতাপাড়া ও সাহাপুর গ্রামে গিয়ে দেখা যায়, বাগানগুলোতে পাকা লিচু থোকায় থোকায় ঝুলে আছে। লিচুর পাইকারি ক্রেতাদের তেমন দেখা যাচ্ছে না। লিচু নিয়ে দুশ্চিন্তায় চাষিরা। পাইকাররা যে দাম হাঁকছেন তাতে নিশ্চিত লোকসানের মুখে পড়বেন চাষিরা।

ঈশ্বরদীর একটি লিচু হাট।

মানিকনগর গ্রামের জহুরুল ইসলাম জানান, বোম্বাই লিচু রোজার আগে হাজার প্রতি ২ হাজার ৫০০ টাকা ও আঁটি লিচু ২ হাজার টাকা দরে বিক্রি করেছি। রোজা শুরুর পর থেকে বোম্বাই লিচু পাইকারি ক্রেতারা হাজার প্রতি দাম বলছে ১ হাজার ৪০০ থেকে ১ হাজার ৫০০ টাকা। আমার একটি বাগানের লিচু এখন বিক্রি বাকি রয়েছে। এই লিচু বিক্রি করে লোকসান হবে।

একই এলাকার মিজানুর রহমান জানান, বাজার ধসের আশঙ্কা দেখে হাজার প্রতি ১ হাজার ৮০০ টাকা দরে লিচু বিক্রি করেছি। এখন বাজার দর আরো খারাপ।

জয়নগর গ্রামের লিচু চাষি ও ব্যবসায়ী মেহেদি হাসান মিন্টু জানান, লিচুর যখন বাগান কিনেছিলাম তখনই লিচু হাজার প্রতি খরচ পড়েছিল ১ হাজার ২০০ থেকে ১ হাজার ৩০০ টাকা। তিন মাস পরিচর্যার পর সেই খরচ হাজার প্রতি বেড়ে দাড়ায় ১ হাজার ৫০০ টাকা। এখন হাজার প্রতি লিচু বিক্রি করতে হচ্ছে ১ হাজার ৩০০ থেকে ১ হাজার ৫০০ টাকা। ছয় লাখ টাকা দিয়ে লিচুর বাগান কিনেছিলাম, পাঁচ লাখ টাকার বেশি লিচু বিক্রি হবে না। লোকসানের আশঙ্কা নিয়ে দুশ্চিন্তায় আছি।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *