সাতক্ষীরায় আন্তর্জাতিক প্রাণবৈচিত্র্য দিবসে ‘প্রকৃতি বন্ধন’

মে ২২, ২০১৭

আপনি দেখছেন: দেশের খবর >> নারী ও শিশু, সাতক্ষীরা, স্থানীয় শীর্ষ >> সাতক্ষীরায় আন্তর্জাতিক প্রাণবৈচিত্র্য দিবসে ‘প্রকৃতি বন্ধন’

আমিনা বিলকিস ময়না, সাতক্ষীরা: সাতক্ষীরায় ব্যতিক্রমধর্মী আয়োজনের মধ্যদিয়ে প্রাণ ও প্রকৃতির বিরুদ্ধে সহিংসতার প্রতিবাদে ‘প্রকৃতি বন্ধন’ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

রবিবার সকাল সাড়ে ৯টায় আন্তর্জাতিক প্রাণবৈচিত্র্য দিবস ও প্রাণ ও প্রকৃতির বিরুদ্ধে সহিংসতা প্রতিরোধ সপ্তাহ উপলক্ষে এই কর্মসূচি পালিত হয়।

সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবের সামনে গবেষণা প্রতিষ্ঠান বারসিক এবং শিক্ষা, সংস্কৃতি ও বৈচিত্র্য রক্ষা টিম এই প্রকৃতি বন্ধনের আয়োজন করে।

শিক্ষা, সংস্কৃতি ও বৈচিত্র্য রক্ষা টিমের সভাপতি শেখ তানজির আহমেদের সঞ্চালনায় এই অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন সাতক্ষীরার বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ প্রফেসর আব্দুল হামিদ, মানবাধিকার সংগঠন স্বদেশের নির্বাহী পরিচালক মাধবচন্দ্র দত্ত, সাংবাদিক শরীফুল্লাহ কায়সার সুমন, বারসিকের গবেষণা সহকারী সাইদুর রহমান প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে শিক্ষা, সংস্কৃতি ও বৈচিত্র্য রক্ষা টিমের সদস্যরা মুখে বিভিন্ন প্রাণি, গাছ ও নদীর মুখোশ পরে নির্ভরশীল অন্যান্য প্রাণ ও প্রকৃতির প্রতি প্রতীকী শ্রদ্ধাজ্ঞাপন ও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

এতে মাছের মুখোশ পরে তাপস বলে, আমি মাছ। আমি নদী ও জলাশয়ের কাছে কৃতজ্ঞ। নদী বেঁচে থাকুক। বিউটি পাখির মুখোশ পরে বলে, আমি পাখি। আমি গাছের কাছে কৃতজ্ঞ। গাছ না বাঁচলে আমি খাবো কী? থাকবো কোথায়? মুরাদ বাঘের মুখোশ পরে বলে, আমি বাঘ। আমি বাংলাদেশের কাছে কৃতজ্ঞ। আমাকে জাতীয় পশুর মর্যাদা দিয়েছে।

নাছির গরুর মুখোশ পরে বলে, আমি গরু। আমি আমন ধানের খড়ের প্রতি কৃতজ্ঞ। এসব খেয়েই আমার ক্ষুধা দূর হয়।

ওমর ফারুক বলে, আমি আমন ধান। আমি মাটির কাছে কৃতজ্ঞ। এই মাটিই আমাকে বড় হওয়ার রসদ জোগায়।

বাহলুল করিম বলে, আমি গাছ। আমি মানুষসহ সকল প্রাণীর কাছেই কৃতজ্ঞ। তারা বুক ভরে আমায় অক্সিজেন নেয়।

সৃষ্টি বলে, আমি প্রজাপতি। আমি মানুষের কাছে কৃতজ্ঞ। আমাকে নিয়ে নাচ ও গান করে মানুষ।
রনি বলে, আমি নদী। আমি মাছ, মানুষ, ডলফিন, কুমীর সবার কাছে কৃতজ্ঞ। তারা আমার শরীরে সাঁতার কাটে, নৌকা বায়। মানুষ আমাকে নিয়ে গান গায়, সিনেমা বানায়।

ফজলু বলে, আমি মানুষ, আমি গাছের কাছে কৃতজ্ঞ, গাছ অক্সিজেন না দিলে আমি বেঁচে থাকতে পারতাম না।

অনুষ্ঠানে এভাবেই বাস্তুসংস্থানে পারস্পারিক নির্ভরশীলতার সম্পর্ককে স্বীকার করে তাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করা হয়।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *