হরিণাকুন্ডু পৌরসভায় নামসর্বস্ব পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি দিয়ে নিয়োগ দেওয়ার চেষ্টা ফাঁস

জাহিদুর রহমান তারিক, হরিণাকুন্ডু (ঝিনাইদহ): ঝিনাইদহের হরিণাকুন্ডু পৌরসভায় গোপনে নামসর্বস্ব পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি দিয়ে নিয়োগ দেওয়ার প্রচেষ্টা ফাঁস হয়ে পড়েছে। পত্রিকার অস্তিত্ব না থাকায় জেলা প্রশাসকের দপ্তর থেকে নিয়োগ কার্যক্রম বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। ১৫ জুলাই ছাড়পত্রের মেয়াদ শেষ হয়ে যাবে।

পৌরসভার সূত্রে জানা গেছে, স্থানীয় সরকার বিভাগের পৌর-২ শাখার উপ-সচিব কাজী আসাদুজ্জামান স্বাক্ষরিত পৌর-২/৪৬.০৬৪.০১১.৩২.০২.৪৫৩.২০১১/৩০৯ নং স্মারকে হরিণাকুন্ডু পৌরসভায় স্যানিটারী ইন্সপেক্টর ও সড়ক বাতি পরিদর্শক এ দু’টি পদে দুই জন কর্মচারী নিয়োগের জন্য ছাড়পত্র দেওয়া হয় এবং ৬ মাসের মধ্যে নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে নির্দেশক্রমে ছাড়পত্র দেয় স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়।

অভ্যন্তরীণ সমস্যা এবং নিয়োগ নিয়ে সৃষ্ট জটিলতার কারণে ৬ মাস মেয়াদ পূর্ণ হলেও দুটি পদের নিয়োগ কার্যক্রম সম্পন্ন করতে পারেনি পৌর কর্তৃপক্ষ। এরপর ২ মাস মেয়াদ বৃদ্ধি করে আবারও ছাড়পত্র দেয় স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়।

পৌরসভার কর্মচারী চাকুরী বিধিমালা ১৯৯২ এবং এ সংক্রান্ত অন্যান্য বিধিবিধান যথাযথভাবে অনুসরণ করে একটি জাতীয় দৈনিক ও একটি স্থানীয় দৈনিক পত্রিকায় নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করতে বলা হলেও তা করেনি সচিব।

শুধু মাত্র নামসর্বস্ব পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি দেয় সচিব সন্তোষ কুমার হাজরা ও কনজারভেন্সি সুপার ভাইজার হাবিব। হরিনাকুন্ডুর পৌর মেয়র নিয়োগকর্তা হলেও তাকে না জানিয়ে গোপনে বিজ্ঞপ্তি দেওয়া হয়। বাছাই কমিটি গঠন করে উল্লেখিত পদসমূহে প্রার্থী বাছাই করে নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পন্ন করার বিধান থাকলেও তা করা হয়েছে অতি গোপনে।

আইনত, পত্রিকায় প্রকাশিত নিয়োগ বিজ্ঞপ্তিতে ছাড়পত্র নম্বর ও তারিখ উল্লেখ করতে হয়। আবেদনপত্র  গ্রহণের জন্য অন্তত ১৪ দিন সময় প্রদানের নিয়ম থাকলেও তা মানা হয়নি। আর এ সব অনিয়ম করা হয়েছে মোটা অঙ্কের টাকার বিনিময়ে। প্রার্থীদের কাছ থেকে হাতিয়ে নেয়া হয়েছে লাখ লাখ টাকা।

অতি গোপনে নিয়োগ সম্পন্ন করতে পৌরসভার সচিব সন্তোষ কুমার হাজরা, কনজারভেন্সি সুপার ভাইজার ও চাকরি প্রার্থীরা মিলে পত্রিকার বিজ্ঞপ্তি নিয়ে জেলা প্রশাসকের দপ্তরে নিয়োগ পরীক্ষার দিন ঠিক করতে এলে নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মেজাব-এ রহমত সাফ জানিয়ে দেন, যে পত্রিকায় নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি দেওয়া হয়েছে তার কোনও অস্তিত্ব নাই। কাজেই নিয়োগ দেওয়া যাবে না। ফলে সেখান থেকে ফিরে যেতে হয় নিয়োগকর্তাদের।

এলাকাবাসি বহুল প্রচারিত দৈনিকে বিজ্ঞপ্তি দিয়ে সুষ্ঠু প্রক্রিয়ায় নিয়োগ কার্যক্রম সম্পন্ন করতে জেলা প্রশাসকসহ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের প্রতি আহবান জানান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *