সুন্দরবন দুর্ঘটনা: সন্ধ্যায় আটকে আছে শতাধিক জাহাজ

সন্ধ্যা নদীতে জাহাজের সারি। ছবি: রবিন

কাউখালী, ২৩ ডিসেম্বর ২০১৪, রবিউল ইসলাম রবিন: সুন্দরবনের শেলা নদীতে নৌ চলাচল বন্ধ থাকায় পিরোজপুরের সন্ধ্যা নদীতে শতাধিক পণ্যবাহী জাহাজ আটকা পড়েছে।

এসব জাহাজ সুন্দরবনের শেলা নদী হয়ে মংলা বন্দরে পৌঁছার কথা ছিল। কিন্তু ১১ ডিসেম্বরের ট্যাংকার দুর্ঘটনার পর সুন্দরবনের নৌপথটি বন্ধ হয়ে যাওয়ায় এবং বিকল্প নৌপথ সচল না থাকায় আটকে গেছে জাহাজগুলো। জাহাজের কর্মীরাও বিপাকে পড়েছেন।

সন্ধ্যা নদীতে জাহাজের সারি। ছবি: রবিন

সন্ধ্যা নদীতে জাহাজের সারি। ছবি: রবিন

সরেজমিন দেখা যায়, কাউখালী লঞ্চঘাট হতে সন্ধ্যা নদীর আমড়াজুড়ি ফেরিঘাট পর্যন্ত প্রায় দু কিলোমিটার এলাকাজুড়ে ছোট-বড় শতাধিক পণ্যবাহী জাহাজ নোঙর করে রাখা হয়েছে। করছে। গত ১১ দিন ধরে আটকে পড়া এসব জাহাজে সিমেন্ট, ক্লিংকার, বালু ও চুনাপাথরসহ বিভিন্ন পণ্য রয়েছে।

এমভি মেঘনার মাস্টার লিটন মিয়া জানান, সুন্দরবনের শেলা নদীতে তেলের ট্যাংকার ডুবির কারণে ওই রুটে নৗচলাচল বন্ধ হয়ে পড়ায় তারা জাহাজ নিয়ে আটকা পড়েছেন।

জাহাজ শ্রমিক মো. কামাল হোসেন জানান, তারা ক্রমেই কর্মহীন হয়ে পড়ছেন। মালামাল খালাস করতে না পেরে দুর্ভোগের মধ্যে পড়েছেন শ্রমিকরা।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষের কাউখালী প্রান্তের  ট্রাফিক মো. আবুল কালাম বলেন, বিকল্প রুট ঘসিয়াখালী চ্যানেলের নাব্যতা হ্রাস পেয়েছে। বিভিন্ন স্থানে প্রচুর ডুবোচরের কারণে ঝুঁকিপূর্ণ এ পথে জাহাজ চলছে না।