খুলনায় আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত

খুলনা থেকে সোহরাব হোসেন: বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য কাজী জাফরউল্লাহ প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক্স মিডিয়ার সাংবাদিকদের উদ্দেশ্যে বলেন, আপনারা খালেদা জিয়ার কার্যালয়ের বিরিয়ানীর প্যাকেট ঢুকতে বাধা দেওয়ার খবরটি কম হাইলাইট করেন। আর বেশি বেশি করে খালেদা জিয়ার নেগেটিভ জিনিসগুলো দেখান। তিনি বলেন, খালেদা জিয়ার কর্মসূচির কারণে যে সব মানুষ দগ্ধ ও ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে তাদের খবরটি বেশি প্রচার করুন।

AL Confarence

জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন এবং পায়রা উড়িয়ে সম্মেলন উদ্বোধন করেন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় প্রেসিডিয়াম সদস্য কাজী জাফরউল্লাহ

কাজী জাফরউল্লাহ বলেন, বেগম খালেদা জিয়া নিজকে অবরুদ্ধ করে রেখেছেন। তিনি বলেন, আপনি বের হয়ে বাংলার আনাচে-কানাচে যান কোথাও অবরোধ-হরতাল দেখতে পাবেন না। দেখতে পাবেন রাতের অন্ধকারে সন্ত্রাসী ও জঙ্গীদের নাশকতা। তিনি আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীদের ঐক্যবদ্ধভাবে সন্ত্রাস ও জঙ্গীবাদ মোকাবেলার আহবান জানান।

কাজী জাফরউল্লাহ বৃহস্পতিবার খুলনা আউটার স্টেডিয়াম মাঠে অনুষ্ঠিত জেলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনে প্রধান অতিথির ভাষণে এসব কথা বলেন।

খুলনা জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ হারুনুর রশিদের সভাপতিত্বে সম্মেলনে বিশেষ অতিথি ছিলেন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় যুগ্ম সম্পাদক মাহবুব-উল-আলম হানিফ এমপি, সাবেক খাদ্য মন্ত্রী কেন্দ্রীয় আওয়ামলীগ নেতা ড.আব্দুর রাজ্জাক এমপি,কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক সুজন মাহমুদ চৌধুরী এমপি, এস এম কামাল হোসেন, খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি তালুকদার আব্দুল খালেক এমপি, নড়াইল জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সুবাস চন্দ্র বোস ও খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব মিজানুর রহমান মিজান। সম্মেলনে প্রধান বক্তা ছিলেন আওয়ামী লীগের খুলনা বিভাগীয় দায়িত্বপ্রাপ্ত সাংগঠনিক সম্পাদক বিএম মোজাম্মেল হক এমপি। সম্মেলনে রিপোর্ট পেশ করেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এস এম মোস্তাফা রশিদী সুজা। এসময়ে সাবেক ছাত্র নেতা ও কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের উপ-সম্পাদক অসিত বরন বিশ্বাস, শেখ মোহাম্মাদ আবু হানিফ, শেখ ফারুক হাসান হিটলু প্রমুখ।

সম্মেলনের মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন মৎস্য ও প্রাণি সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নারায়ন চন্দ্র চন্দ, শেখ নুরুল হক এমপি, পঞ্চানন বিশ্বাস এমপিসহ যশোর, সাতক্ষীরা ও নড়াইল জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকসহ ১৪দলের নেতৃবৃন্দ।

এর আগে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন করে এবং পায়রা উড়িয়ে সম্মেলন উদ্বোধন করেন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় প্রেসিডিয়াম সদস্য কাজী জাফরউল্লাহ।

দীর্ঘ ১১ বছর পর খুলনা জেলা আওয়ামী লীগের এ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হলো। এর আগে ২০০৪ সালের ১৭ জানুয়ারি জেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।