সোনালী ব্যাংকের কোটি টাকা লোপাট, রাজশাহীতে গ্রেফতার ৩

কাজী শাহেদ, রাজশাহী: তানোরে সোনালী ব্যাংক থেকে কৌশলে কোটি টাকা হাতিয়ে নেওয়ার ঘটনায় ব্যাংক কর্মকর্তা ও তার দুই সহযোগীকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। সোমবার গভীর রাতে অভিযান চালিয়ে রাজশাহী নগরী থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারের পর মূলহোতা সোনালী ব্যাংকের সিনিয়র অফিসার নজির হোসেন টাকা হাতিয়ে নিতে ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের জড়িত থাকার কথা জানিয়েছেন।

র‌্যাব জানায়, সোনালী ব্যাংকের তানোর শাখা থেকে এক কোটি ১৮ হাজার টাকা লোপাটের ঘটনায় ২৪ জুন মামলা হয়। ওই মামলাটি দুর্নীতি দমন কমিশন তদন্ত করছে। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তার অনুরোধে র‌্যাব আসামিদের গ্রেফতারে অভিযান শুরু করে। সোমবার গভীর রাতে নগরীর রাজপাড়া থানার ব্যাংক কলোনি থেকে নজির হোসেন ও তার স্ত্রী ছালমা জাহান লিমা, দড়িখরবোনা এলাকা থেকে তার সহযোগী এসএম মাসুদ হাসান মাসুদকে গ্রেফতার করা হয়।

মঙ্গলবার সকালে সংবাদ সম্মেলনে র‌্যাব জানান, ব্যাংকের সিনিয়র অফিসার নজির হোসেন নিজস্ব পাসওয়ার্ড ব্যবহার করে স্ত্রী ছালমা জাহান লিমার হিসাব নম্বরে ৬৩ লাখ ৮৭ হাজার ২৮৮ টাকা এবং নজিরের পিতা গোলাম মোস্তফার হিসাব নম্বরে দুই দফায় ১৩ লাখ ৩২ হাজার ও ২৩ লাখ টাকা স্থানান্তর করেন। পরে সেই টাকা আত্মসাৎ করা হয়। ২০১১ ও ২০১২ সালের মধ্যে এই টাকা আত্মসাত করেন।

গ্রেফতার নজির হোসেন জানান, ঊর্ধ্বতন ব্যাংক কর্মকর্তাদের সহযোগিতায় তিনি এ টাকা আত্মসাত করেন। হিসাবে গরমিল ধরা পড়লেও সেসময় অডিট করতে আসা ব্যক্তিদের অর্থ দিয়ে ম্যানেজ করেছেন। ফলে এতোদিন বিষয়টি চাপা ছিল।

আত্মসাৎ করা টাকা দিয়ে নজির হোসেন ও তার সহযোগী মাসুদ চাঁপাইনবাবগঞ্জের নাচোলে ৩০০ বিঘা জমি ইজারা নিয়ে চাষাবাদ করছেন। পদ্মা সীড নামে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান খুলেছেন। এছাড়া পরিবহন খাতে বিনিয়োগ করেছেন বলে র‌্যাবের জিজ্ঞাসাাদে তারা স্বীকার করেছেন।