রায়পুরে ‘ভাড়াটে’ যুবলীগ কর্মীদের হামলায় সংখ্যালঘু পরিবারের ১২ জন আহত, লুটপাট

মো. মাহবুবুল আলম মিন্টু, রায়পুর (লক্ষ্মীপুর): রায়পুরে সংখ্যালঘুর বাড়িতে হামলা ও ভাংচুর চালিয়ে নগদ টাকা, স্বর্ণালংকার ও ল্যাপটপসহ ৩ লক্ষাধিক টাকার মালামাল লুটে নিয়ে গেছে ভাড়াটে যুবলীগ নেতা-কর্মীরা।

হামলায় নারীসহ অন্তত ১২ জন আহত হয়েছে। আহত পাঁচ নারীসহ নয়জনকে রায়পুর সরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনায় ওই পরিবারের সদস্যদের মধ্যে আতঙ্ক বিরাজ করছে।

Raipur attack on minority house

সাংবাদিকদের কাছে হামলা ও লুটপাটের কথা জানাচ্ছেন ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের সদস্যরা।

পাওনা টাকাকে কেন্দ্র করে দুই পরিবারের দ্বন্দ্বে রোববার (১৯ জুলাই) বিকেলে উপজেলার গাইয়ারচর গ্রামের প্রয়াত স্কুল শিক্ষক এবং আওয়ামী লীগ নেতা প্রকৃত রঞ্জন মিশ্রর বাড়িতে হামলা ও লুটপাটের ঘটনা ঘটে।

একই এলাকার অবসরপ্রাপ্ত পুলিশ কনস্টেবল কার্তিক সরকারের ভাড়াটে হিসেবে যুবলীগ নেতা তাজুল ইসলাম তাজুর নেতৃত্বে এ হামলার চালানো হয়েছে বলে ক্ষতিগ্রস্তরা অভিযোগ করেছেন।

ক্ষতিগ্রস্তরা জানায়, ক্যাম্পেরহাট বাজারে অবস্থিত প্রকৃত রঞ্জন মিশ্রর একটি ঘর ‘গ্রীণ বাংলা মাল্টিপারপাস’ নামের একটি আর্থিক প্রতিষ্ঠান ভাড়া নেয়। ওই প্রতিষ্ঠানেই চাকুরি করতেন প্রকৃত রঞ্জনের ছেলে শ্যামল মিশ্র, একই এলাকার কার্তিক সরকার ও কার্তিকের কন্যা হ্যাপী সরকার। সম্প্রতি বিপুল পরিমাণ টাকা আত্মসাৎ করে পালিয়ে যায় ওই সংস্থাটি। শ্যামলের নিকট টাকা পাওনা দাবি করে হ্যাপী সালিশের আয়োজন করেন। একাধিকবার সালিশ হলেও শ্যামলের বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত হয়নি। এ কারণে ক্ষুব্ধ হয়ে ওঠে হ্যাপী ও তার পিতা কার্তিক।

এই ঘটনাকে কেন্দ্র করেই হ্যাপীর পক্ষ নিয়ে যুবলীগ নেতা তাজুল ইসলাম তাজুর নেতৃত্বে যুবলীগ ও ছাত্রলীগের ২৫-৩০ জন নেতা-কর্মী দেশীয় ধারালো অস্ত্রসস্ত্র ও লাঠিসোঁটা নিয়ে শ্যামলের বাড়িতে হামলা, ভাংচুর, মারধর ও লুটপাট চালানো হয়।

যুবলীগ নেতা তাজুল ইসলাম তাজু ঘটনার সাথে জড়িত থাকার অভিযোগ অস্বীকার করে দাবি করেন, তিনি ওই রাস্তা দিয়ে যাওয়ার পথে ঘটনা দেখে তা থামানোর চেষ্টা করেছেন।

এ ঘটনায় অভিযুক্ত কার্তিক সরকারের বক্তব্য জানার চেষ্টা করেও তাকে বাড়িতে গিয়ে পাওয়া যায়নি। তবে তার স্ত্রী বিভা সরকার বলেন, মেয়ে ক্ষুব্ধ হয়ে টাকার জন্য গেলে শ্যামল তাকে মারধর করে। খবর পেয়ে আমাদের লোকজন গিয়ে তাকে উদ্ধার করে।

রায়পুর থানার ওসি আব্দুল্লাহ আল মামুন ভূঁইয়া সাংবাদিকদের বলেন, ঘটনা শুনেই ওই বাড়িতে পুলিশ পাঠিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনা হয়েছে। তারা নিজেদের মধ্যে টাকা নিয়ে মারামারি করেছে। ক্ষতিগ্রস্তরা মামলা করলে তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।