সাতক্ষীরার শ্যামনগরে পুলিশের সাথে বন্দুকযুদ্ধে ২ বনদস্যু নিহত

আমিনা বিলকিস ময়না, সাতক্ষীরা: সাতক্ষীরার শ্যামনগর উপজেলার বড়কুপট গ্রামে পুলিশের সাথে বন্দুকযুদ্ধে দুই ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন পুলিশের তিন সদস্য। নিহতরা সুন্দরবনের চিহ্নিত বনদস্যু বলে দাবি করেছে পুলিশ।

পুলিশ জানায়, নিহতরা হলেন আলাল বাহিনী প্রধান আলাল ও তার সহযোগী শহীদুল ইসলাম। ঘটনাস্থল থেকে ২০ রাউন্ড গুলিসহ একটি শাটার গান উদ্ধার করেছে পুলিশ। সোমবার রাত ১০টার দিকে সুন্দরবন সংলগ্ন শ্যামনগর উপজেলার গাবুরা ইউনিয়নে বন্দুকযুদ্ধের এই ঘটনা ঘটে।

শ্যামনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এনামুল হক জানান, সোমবার রাতে দুই জলদস্যু আলাল গাজী ও শহীদুল ইসলাম বড়কুপোট গ্রামে তাদের কাছে জিম্মি হিসেবে আটক থাকা জেলেদের পরিবারের কাছ থেকে চাঁদা আদায় করছে এমন খবরের ভিত্তিতে পুলিশের একটি দল সেখানে পৌঁছায়। ওসি বলেন, পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়েই আলাল ও তার সহযোগীরা পুলিশের ওপর প্রথমে গুলিবর্ষণ করে ও ককটেল নিক্ষেপ করে তাদের প্রতিহত করার চেষ্টা করে। তিনি আরও জানান, পুলিশও এ সময় পাল্টা ১০ রাউন্ড গুলি ছোড়ে।

প্রায় ৩০ মিনিট বন্দুকযুদ্ধের পর দুইজন গুলিবিদ্ধ হন। গুলিবিদ্ধ অবস্থায় তাদেরকে শ্যামনগর হাসপাতালে নেওয়া হলে ডাক্তার তাদের মৃত ঘোষণা করেন। স্থানীয় লোকজন নিহতদেরকে জলদস্যু আলাল ও শহীদুল নামে শনাক্ত করেন। আলাল আশাশুনির শীতলপুর গ্রামের আলিউদ্দিন গাজীর ছেলে ও শহীদুল ইসলাম শ্যামনগরের আটুলিয়া ইউনিয়নের বড়কুপট গ্রামের রশিদ সরদারের ছেলে। তাদের দুইজনের বিরুদ্ধে শ্যামনগরসহ বিভিন্ন থানায় ৬টি করে মামলা রয়েছে।

পুলিশ জানায় গত ফেব্রুয়ারি মাসে আলাল অস্ত্রসহ র‌্যাবের হাতে ধরা পড়েছিল।

ওসি আরও জানান, বন্দুকযুদ্ধে পুলিশের তিন সদস্য উপপরিদর্শক আব্দুল কাদের, উপপরিদর্শক নাজমুল ইসলাম ও কনস্টেবল সোনা মিয়া গুলিবিদ্ধ হয়েছেন। তাদেরকে শ্যামনগর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.