হামলার পেছনে ক্ষমতাসীনরাই দায়ী, আন্দোলন চলবে: খালেদা

নিরাপত্তার আশ্বাস দিয়ে নিরপরাধ মানুষকে হত্যা করেছে ক্ষমতাসীনরাই। বিভিন্ন হামলার পেছনে তারাই দায়ী বলে প্রমাণ হয়েছে। যুগ্ম-মহাসচিব সালাউদ্দিন আহমেদকে গ্রেফতার করে গত তিনদিনে স্বীকার করেনি সরকার। মাহমুদুর রহমান মান্নাকেও আটক করে পরে নাটক সাজিয়ে ফেরত দিয়েছে।   শুক্রবার বিকেলে গুলশান কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া এসব কথা বলেন।

বিএনপির নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের চলমান ‘গণতান্ত্রিক আন্দোলন’কে সরকার জঙ্গিবাদ বলে দেশ-বিদেশে অপপ্রচার চালাচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। এসব ক্ষেত্রে আন্তর্জাতিক মহলের সহযোগিতা কামনা করেন তিনি।

বিএনপির নেতৃত্বাধীন ২০-দলীয় জোটের আন্দোলন ‘যৌক্তিক পরিণতি’ পর্যন্ত না পৌঁছা পর্যন্ত চলবে বলে ঘোষণা দিয়েছেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া।

তবে ‘যৌক্তিক পরিণতি’ বলতে কী বোঝাতে চেয়েছেন, সে বিষয়ে খালেদা জিয়া কোনো ব্যাখ্যা দেননি। আন্দোলন (হরতাল-অবরোধ) চলার কারণে ‘সাময়িক’ কষ্ট স্বীকার করতে জনগণের প্রতি অনুরোধও জানান খালেদা জিয়া।
খালেদা জিয়া লিখিত বক্তব্য বলেন, এই সরকারের সময় দেশের প্রতিটি জনপদে আজ স্বজন হারানোর কান্না চলছে। কে কখন গুম-খুন হবে, তা কেউ জানে না। এর পরও যাঁরা আন্দোলন অব্যাহত রেখেছেন, তাঁদের ধন্যবাদ জানান বিএনপির চেয়ারপারসন।

সংকট নিরসনে সরকারের উদ্দেশ্যে তিনি শর্ত দিয়ে বলেন, গুম, খুন, বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ডের তদন্ত করে দায়ীদের বিচারের আওতায় আনতে হবে। সভা-সমাবেশ, মিছিল কর্মচি পালনের ওপর থেকে বিধি-নিষেধ প্রত্যাহার করতে হবে। এরপর সবার কাছে গ্রহণযোগ্য অংশগ্রহণমূলক সংসদ নির্বাচনের আয়োজন করতে হবে। এছাড়া, সংলাপের আয়োজন করতে হবে।

তিনি বলেন, সমঝোতার কথা যারা বলে- এই সরকার তাদের অসম্মান করে।

১৯ জানুয়ারি রাতে প্রথমবারের মতো সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য দিয়েছিলেন খালেদা জিয়া। ৫৩ দিন পর আজ আবার সংবাদ সম্মেলন করেন তিনি।