অবৈধ বাণিজ্য বন্ধ ও স্বাস্থ্য সেবার দাবিতে কলাপাড়ায় মানববন্ধন

মিলন কর্মকার রাজু, কলাপাড়া (পটুয়াখালী): পটুয়াখালীর কলাপাড়া হাসপাতালে অত্যাধুনিক অপারেশন থিয়েটার চালু থাকলেও গর্ভবতী মায়েদের অপারেশন হয় নির্দিষ্ট ক্লিনিকে। সিজারিয়ান ও অবশ করার ডাক্তার শুধু অফিস সময়েই রোগী দেখলেও হাসপাতালে ভর্তি গর্ভবতী মায়ের গভীর রাতে প্রসব যন্ত্রণা শুরু হলে তাদের কোনো চিকিৎসা সহায়তা দেওয়া হয়না। উল্টো তাদের সরকারি হাসপাতালে রেফার না করে অপারেশন বাণিজ্যের জন্য গুরুতর অবস্থায়ও রোগীকে পাঠানো হয় ক্লিনিকে।

KALAPARA MANOBBANDHON PIC-1(25.04.2016)
অবৈধ বাণিজ্য বন্ধ ও নিরাপদ স্বাস্থ্য সেবার দাবিতে কলাপাড়ায় এলাকাবাসীর মানববন্ধন

সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত রোগীর চেয়ে হাসপাতালে ক্লিনিক ও ল্যাবের দালালদের বিচরণই বেশি দেখা যায়। সাধারণ রোগীরা পায়না সরকারি ওষুধ ও প্রয়োজনীয় চিকিৎসা। ভিজিট ছাড়া রোগীদের দেওয়া হয়না কোন ব্যবস্থাপত্র। আর হাসপাতালে সকল টেষ্ট সুবিধা চালু থাকলেও পার্সেন্টিজের লোভে রোগীদের পাঠানো হয় অবৈধ ক্লিনিক ও ডায়গনিষ্টিক সেন্টারগুলোতে।

কলাপাড়া হাসপাতালের এ অনিয়ম বন্ধ এবং যথাযথ সেবা প্রদানের দাবিতে সোমবার সকালে কলাপাড়া-কুয়াকাটা মহাসড়কে হাসপাতালের সামনে মানববন্ধন করেছে চিকিৎসাসেবা বঞ্চিত এলাকাবাসী। প্রায় ঘন্টাব্যাপী মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন মালেকা বেগম, জুলহাস, আব্দুল আজিজ ও আলমগীর সিকদার প্রমুখ।

“আমরা মরতে চাইনা, আমাদের বাঁচান, আমরা গরীব, আমাদের হাসপাতালেই চিকিৎসা সেবা দিন, ক্লিনিক বা ডায়াগনষ্টিক ল্যাবে পাঠাবেন না”। এ শ্লোগান নিয়ে মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, শুধু জ্বর হলেও ডাক্তারের কাছে গেলে দেওয়া হয় ১৩’শ-২’হাজার টাকার টেস্ট। কোন স্বাস্থ্য পরীক্ষাই হাসপাতালে হয় না। আর সিজারিয়ান ডাক্তার হাসপাতালে রোগী দেখার চেয়ে ব্যস্ত থাকেন ক্লিনিক বাণিজ্যে। ইতিমধ্যে তাঁর  অসাবধানতায় একটি ক্লিনিকে এক শিশুর মৃত্যু হলেও তাঁর ক্লিনিক বাণিজ্য বন্ধ হয়নি।

বক্তারা হাসপাতালে গরীব প্রসূতিদের সিজারিয়ান পদ্ধতি সার্বক্ষণিক চালুর দাবি, দালালমুক্ত হাসপাতাল এবং প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া বিশেষ চিকিৎসাসেবা নিশ্চিত করার সুযোগ চান। এ সুবিধা আগামী সাত দিনের মধ্যে চালু না হলে বৃহত্তর আন্দোলনের আলটিমেটাম দেন।

এ ব্যাপারে উপজেলা স্বাস্থ্য প্রশাসক ডা. মো. আব্দুল মান্নান জানান, তাঁরা হাসপাতালকে দালালমুক্ত ও অফিস টাইমে ভিজিট নেওয়া বন্ধের চেষ্টা করছেন। তবে জনবল না থাকায় রাতে কিংবা অফিস টাইমের বাইরে অপারেশন সুবিধা চালু করতে পারছেন না বলে জানান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.